বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১১:০৫ পূর্বাহ্ন
সংক্ষিপ্ত সংবাদঃ
আন্দোলনের ডাকের অপেক্ষায় আছি : সালাহউদ্দিন আহমেদ খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করলো ঢাকা ৫ বিএনপি ফরিদপুরে ফেসবুকে আপত্তিকর স্টাটাস দিয়ে চাঁদা দাবির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি ও প্রয়াত বিএনপি নেতা পিন্টুর মাগফেরাত কামনায় ছাত্রদল নেতা নিলয়ের ইফতার ও দোয়া মাহফিল বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের ইফতার ও দোয়ার মাহফিল আন্দোলনের মাধ্যমেই এই সরকারের পতন হবে: বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ ঢাকা দক্ষিণ ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল পালিত পুলিশী হামলায় আহত নেতাকর্মীদের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিলেন বিএনপি নেতা রবিন আমরা আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত আছি : বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ বাতিল হচ্ছে পাপুলের এমপি পদ

ফরিদপুরে ফেসবুকে আপত্তিকর স্টাটাস দিয়ে চাঁদা দাবির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৩ জুন, ২০২১
  • ১৩৯ জন পড়েছেন

ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি: ফরিদপুরে স্বনামধন্য একটি প্রবাসী পরিবারের বিরুদ্ধে MD Sohidul এবং Monirul Haque Molla নামের দুইটি ফেসবুক ওয়ালেটে আপত্তিকর ছবি ও ভিডিওসহ স্টাটাস লিখে পরে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেবার ভয় দেখিয়ে চাঁদা দাবির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভূক্তভোগী পরিবারটি। গত ১০ জুন’২০২১ রোজ বৃহ:স্পতিবার বিকাল ৪ টায় উপজেলার কালামৃধা ইউনিয়নের নয়াকান্দি গ্রামে সংবাদ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়। পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন স্থানীয় নেতা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বেপারী।

পরিবারটির প্রধান হাজী বজলু শেখ (৭০) জানান, গত ক’দিন ধরে ০১৭১৫-৪৭৭৬৪৬ নাম্বার থেকে জনৈক শহিদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি ফোন করে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয়ে বলেন, “আপনাদের নামে অভিযোগ আছে। তদন্তের জন্য আপনার বাসায় আসবো”। পরে তিনি বাসায় এসে কিছু না বলেই বিনা অনুমতিতে আমাদের নব নির্মিত দ্বিতল ভবনের ভিডিও করেন। পরে একটি ভিজিটিং কার্ড দিয়ে তাঁর সাথে উপজেলায় গিয়ে দেখা করতে বলেন। ভিজিটিং কার্ডটিতে মোঃ শহিদুল ইসলাম, প্রকাশক ও সম্পাদক- সমাজের আলো ৪২০ ডট.কম, ক্রাইম রিপোর্টার- দৈনিক আমাদের কন্ঠ, সভাপতি- বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন পরিষদ ভাঙ্গা উপজেলা শাখা, সাংগঠনিক সম্পাদক- জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাব ভাঙ্গা উপজেলা শাখা লেখা দেখতে পাই।

এর একদিন পরে তিনি আমার বড় ছেলেকে বিষয়টি “কুড়ি হাজার” টাকায় বিশেষ দফারফা করার প্রস্তাব দেন এবং কোন সংবাদ লিখবেন না মর্মে জানান। তাঁর অনৈতিক এই প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় গত ৯ জুন’২০২১ তারিখ রোজ বুধবার গভীর রাতে আমার ছেলের মুঠোফোনে অপরিচিত ০১৭৩৯-৫৮৩৬৭৪ নাম্বার থেকে ফোন করে নিজেকে “শাপলা” নামে পরিচয় দিয়ে বলেন, আমি ফরিদপুর থেকে “দৈনিক কালের কন্ঠ” পত্রিকার নারী সাংবাদিক বলছি” আপনাদের নামে অভিযোগ আছে। আপনাদের আয়ের বৈধ উৎস কি? তা খতিয়ে দেখতে ক্যামেরাম্যানসহ আসবো। রেডি থাকবেন। আমরা তাঁকে আসতে অনুরোধ করলেও পরে তিনি আর আসেননি এবং আমাদের মোবাইল কলও রিসিভ করেননি। তথাকথিত সাংবাদিক পরিচয়দানকারীরা বারবার আমাকে অভিযোগের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে বলেন, নির্মানাধীন বাড়ীর টাকা কোথায় পেলেন? আপনাদের বৈধ আয়ের উৎস কি?

উত্তরে প্রবাসী পরিবারের পক্ষ থেকে উপস্থিত সাংবাদিকদের জানানো হয়, যেহেতু উল্লেখিতরা আমাদের পরিবারের বৈধ আয়ের উৎস সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন এবং অনৈতিকভাবে নগদ অর্থ সুবিধা আদায়ে ব্যর্থ হয়ে আমাদের বক্তব্য গ্রহন করতে আসেননি সেহেতু আমরাই স্বপ্রনোদিত হয়েই ফরিদপুর প্রেসক্লাব, ভাঙ্গা উপজেলা প্রেসক্লাব এবং অনলাইন প্রেসক্লাবের সম্মানীত সাংবাদিক ভাইদের নিজ বাড়ীতে সরেজমিনে আমাদের বৈধ আয়ের উৎস সম্পর্কে জানতে ও দেশবাসীকে জানাতে আমন্ত্রণ করেছি।

হাজী বজলু শেখ স্বাক্ষরিত সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অত্র উপজেলার কালামৃধা ইউনিয়নের মধ্যে শেখ পরিবারটির “গ্রীস, ইতালী ও তুরস্ক প্রবাসী পরিবার” হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে। আমার ছোট ভাই শেখ আজিম সিরাজ (৫৬) গত ১৯৯৬ সাল থেকে গ্রীস ও তুরস্ক প্রবাসী। তিনি মাঝেমধ্যে বাংলাদেশে আসেন, আবার চলে যান। গ্রীস ও তুরস্কে তাঁর নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। ঢাকার গ্রীন রোডে তাঁর ক্রয়কৃত এপার্টমেন্টে স্বপরিবারে বসবাস করেন। সেখানে তাঁর বৈধ ব্যবসা রয়েছে। তিনি ২০১০ সালে অনুষ্ঠিত কালামৃধা ইউ’পি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন।

আমাদের পরিবারের সদস্যরা তুরস্ক আ.লীগ এবং স্থানীয় আ.লীগ রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত। এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আমাদের উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে। আমরা ফরিদপুর-৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব মজিবুর রহমান চৌধুরী (নিক্সন) সাহেবের পাশে থেকে স্থানীয় আ.লীগকে আরও শক্তিশালী করতে সক্রিয় আছি। আসন্ন ইউ’পি নির্বাচনে এবারও আমরা সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহন করার আশা রাখছি।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, আমার বড় পুত্র শেখ শাহাবুদ্দিন (৪২) ২০০৩ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত ইতালী, ২০১২ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত দুবাই এবং ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সৌদি আরব প্রবাসী। মেঝ পুত্র শেখ মহিউদ্দিন (৩৯) ২০০৩ সাল থেকে ইতালী প্রবাসী এবং সেখানের স্থায়ী নাগরিক। সে গত ৩/৪ মাস আগে দেশে ফিরেছে। ইতালীতে তাঁর নিজস্ব ব্যবসা রয়েছে। আমার সর্ব কনিষ্ঠ পুত্র শেখ নিজামউদ্দিন (৩২) ২০১৪ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত তুরস্ক প্রবাসী। পরবর্তীতে সে আর বিদেশে না গিয়ে ঢাকায় আমার ছোট ভাইয়ের অবর্তমানে তাঁর ব্যবসা বানিজ্য পরিচালনা করাসহ গ্রামের বিষয় সম্পত্তি ও আমাদেরকে দেখাশুনা করে আসছে।

অত্র ইউনিয়নের মধ্যে আমাদের “প্রবাসী” শেখ পরিবারটি আদিকাল থেকেই আর্থিকভাবে স্বচ্ছল। দেওড়া বাজারে একাধিক দোকানঘর ও ফসলী মাঠে অন্তত ৪০/৪২ বিঘা আবাদী জমি ও পুকুর আছে। সংবাদ সম্মেলন চলাকালীন সময়ে হাজী বজলু শেখ উপস্থিত সাংবাদিকদের নিকট প্রশ্ন রেখে বলেন, আর্থিকভাবে অতি সচ্ছল এই পরিবারটির পক্ষে বসবাসের জন্য একটি দ্বিতল ভবন নির্মান করা কি অসম্ভব কিছু?

সংবাদ সম্মেলনে তথাকথিত ফেসবুক সাংবাদিক পরিচয়দানকারীদের সম্পর্কে বলা হয়, প্রবাসী পরিবারটি তাদের আয়ের বৈধ উৎস সম্পর্কে মিডিয়ার মাধ্যমে দেশবাসীকে জানিয়েছে। এবার যারা আমাদের বৈধ আয়ের উৎস খুঁজেছেন, সেই MD Sohidul এবং Monirul Haque Molla নামের ফেসবুক অপব্যবহারকারীরা মিডিয়ার মাধ্যমে দেশবাসীকে তাদের বৈধ আয়ের উৎস সম্পর্কে অবগত করুক। তথাকথিত ফেসবুকের সাংবাদিক পরিচয়দানকারীদের উদ্দেশ্যে আরও প্রশ্ন রেখে বলেন, আপনারা কে বা কারা? এবং কোন চরিত্রের অধিকারী? তা জেলা ও উপজেলাবাসী ভালো করেই জানেন ও বোঝেন। আপনাদের বৈধ কোন ব্যবসা বানিজ্য থাকলে অথবা বৈধ আয়ের উৎস থাকলে তা মিডিয়ার মাধ্যমে তুলে ধরে দেশবাসীকে জানান। আপনাদের বৈধ আয়ের উৎস সম্পর্কে দেশবাসী জানতে চায়।

সংবাদ সম্মেলনে চক্রটির এমন অনৈতিক কর্মকান্ডেরর তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়ে বলা হয়, আসন্ন ইউ’পি নির্বাচনকে সামনে রেখে স্থানীয় একটি দুষ্টু চক্রের যোগসাজসে চক্রটি সামাজিকভাবে আমাদেরকে হেয় করতেই এই ধরনের ষড়যন্ত্র করছে। চক্রটি সম্প্রতি ভাঙ্গা থানা পুলিশ কর্তৃক মিয়াপাড়া গ্রাম থেকে আটককৃত ১১ জন বিকাশ প্রতারকের ছবি থানা পুলিশের ফেসবুক পেইজ থেকে ডাউনলোড করে তার সাথে আমাদের নব নির্মিত দ্বিতল ভবনের ছবি যুক্ত করে তাদের স্ব-স্ব ফেসবুক আইডি’তে আপলোড করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

এই অসাধু চক্রটি ইন্টারনেট থেকে বিভিন্ন ছবি ডাউনলোড করে ফটোসপ সফট্অয়্যারের মাধ্যমে নিত্য নতুন ছবি বানিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে। যা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮ এর ২৫, ২৯ এবং ৩৫ ধারা মতে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আমরা অচিরেই চক্রটির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করতে সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসন ও বিজ্ঞ আদালতের শরনাপন্ন হবো। চক্রটির এসকল অনৈতিক কর্মকান্ড মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত।

সংবাদ সম্মেলনে চক্রটির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি সহ তাদের বৈধ আয়ের উৎস খুঁজতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ পড়ুন
© All rights reserved © 2021 bdtribune24.com
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102